1. omsakhawat@gmail.com : admin :
  2. emaad55669@gmail.com : Sakhawat Ullah : Sakhawat Ullah
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:৪০ পূর্বাহ্ন
বিঃ দ্রষ্টব্য
★★ স্বাগতম আপনাকে আমাদের সাইটে ভিজিট করার জন্য!চাইলে আপনিও আমাদের সাথে যুক্ত হতে পারেন!  বিস্তারিত জানতে যোগাযোগ করুন! ★★
শিরোনাম
গভীর রাতে থেমে গেল ট্রেন, রেললাইনে শুয়ে রক্তাক্ত কুমির! সোমালিয়ায় আত্মঘাতী হামলা, নিহত ১১ সৌদি বাদশার বিশেষ সহকারীকে অব্যাহতি দিয়ে নতুন নির্দেশনা ইশা ছাত্র আন্দোলন ঢাকা মহানগর পূর্বের বইপাঠ ও পর্যালোচনা উৎসব অনুষ্ঠিত গাজায় বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল ‘সংক্রমণ বাড়লে আবারো স্কুল-কলেজ বন্ধের পরামর্শ দেওয়া হবে’ রাজধানীতে পথকলিদের নিয়ে ইশা ঢাকা মহানগর পূর্বের শিক্ষা আসর ও খাবার বিতরণ কর্মসূচী পালিত বাবু নগরীর পর এবার চলে গেলেন বাংলাদেশের মুফতিয়ে আজম আব্দুস সালাম চাটগামী অ্যাসাইনমেন্ট দিতে এসে কলেজের টয়লেটে সন্তান প্রসব, রেখেই পালালো ছাত্রী জামায়াতের সেক্রেটারিসহ ৯ নেতাকর্মী আটক

অর্থনৈতিকভাবে স্ববালম্বী হতে চাকরি বা বিজনেস যেটা আপনার ইচ্ছা বেছে নিন আজই!

আত্মহত্যার আগে দেয়া ফ্রিল্যান্সার টুটুলের যে আবেগঘন ফেসবুক পোস্ট কাঁদাচ্ছে সবাইকে!

  • প্রকাশকাল : বুধবার, ২ জুন, ২০২১
  • ৭৫ পঠিত

আত্মহত্যার আগে দেয়া ফ্রিল্যান্সার টুটুলের যে আবেগঘন ফেসবুক পোস্ট কাঁদাচ্ছে সবাইকে রাজশাহীতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন আনারুল ইসলাম টুটুল নামের এক ফ্রিল্যান্সার। তার বাড়ি নগরীর হোসেনীগঞ্জে। মঙ্গলবার (০১ জুন) বেলা ১১টায় পুলিশ আত্মহত্যার বিষয়টি জানতে পারে। এরপর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। বিকাল সাড়ে ৪টায় ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। রাজশাহী নগরীর বোয়ালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিবারণ চন্দ্র বর্মণ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন,

সোমবার দিবাগত রাতের যেকোনো সময় আনারুল ইসলাম টুটুল আত্মহত্যা করেছেন। তাকে ঘুম থেকে উঠতে না দেখে বাড়ির লোকজনের সন্দেহ হয়। এরপর তারা পুলিশে খবর দেয়। আমরা গিয়ে তাকে গলায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় উদ্ধার করেছি। তিনি অনেক ঋণগ্রস্ত ছিলেন বলে আমরা জেনেছি। তিনি আরও বলেন, মারা যাওয়ার আগে সোমবার রাত ১১টা ১৩ মিনিটে আনারুল ইসলাম টুটুল তার ফেসবুকে দীর্ঘ একটি স্ট্যাটাস দেন।

তাঁর ফেসবুক পোস্টটি হুবুহু তুলে ধরা হলো –

‘প্রিয় দেশবাসী , আসসালামু আলাইকুম । আমার পোস্টটি অবশ্যই পড়বেন। আমি মোঃ আনারুল ইসলাম টুটুল । আমি অসুস্থ থাকা অবস্থায় অনেকে এ আমাকে সাহায্য করেছিলেন। আমি একটু সুস্থ হবার পরে মনে করলাম জীবন এ তো অনেক কষ্ট করেছি একটু ছেলে/মেয়ে কে সুখ দেবার চেষ্টা করি তাই নেমে পড়লাম জীবন যুদ্ধে, কারণ আমি জানি বসে থেকে খেলে রাজার ভান্ডার এক সময় শেষ হইয়া যাবে। আমি যেহেতু অসুস্থ সেই জন্য বাড়ি ভাড়া নিয়ে কয়টা কম্পিউটার কিনে কাজ শুরু করে দিলাম।

২/৩ মাস ভালোই গেলো , শুরু হলো আবার আমার শরীর খারাপ, অনেক ইনভেস্ট অনেক লস। কোনো ভাবেই সব ঠিক করতে পারছি না। আমার ছোট মেয়ে রুকু মনি ৫ ওয়াক্ত নামাজ পরে ওর প্যান্ট ছিড়ে গেছে। ওর আম্মু কে বলছে আম্মু সব গুলান সেলাই করে দাও, আমার বউটা ছেড়া জামা, ছেড়া বোরখা পরে বেড়াচ্ছে , এই গুলান দেখে কি করে সহ্য করি আমি। ওরা কিছু চাওয়ার আগেই তো আমি হাজির করে দিয়েছি। যত দিন থেকে এই অনলাইন জগতে এসেছি একটা রাত আরামে ঘুমাতে পারিনি, শুধু টেনশন আর টেনশন লক্ষ্য লক্ষ টাকার জিমেইল ইডু মেইল ডিসেবল। তবু আমিও সব ঠিক করে নিতে পারতাম, কাজ জানি কিন্তু মানুষ আমাকে চিটার বাটপার ভাবতে পারে।

কাকে বলবো আমার দুঃখের কথা কাওকে তো পাশে পাবোনা। আমি মানসিক ভাবে অনেক ক্ষতিগ্রস্ত। আমি রেক্স আইটির আব্দুস সালাম পলাশ এর কাছে ১৭ লক্ষ্য টাকা পাবো। আমার ব্যাচ নম্বর ১৬৬ । পলাশ কে কয়দিন আগে সি-আইডি ধরেছে। এই পলাশের জন্য হাজারো পরিবার শেষ হয়ে গেছে, কয়েক হাজার কোটি টাকা মেরে দিয়েছে। সকল রেক্সার ভাই যারা যারা আমাকে চেনেন আমার পরিবার এর পাশে থাকবেন। আর আপনাদের এই হতভাগা টুটুল ভাইকে ক্ষমা করে দিবেন। আমার স্ত্রীকে কেউ দোষারোপ করবেন না, সে আমার কিছুই জানে না, কারণ সে আমাকে সব থেকে বেশি বিশ্বাস করে।

ওর ওসব টাকা পয়সা আমাকে দিয়ে দিয়েছে। আমি কোনো সময় আমার কাজের বিষয় এ ওর সাথে কোনো কিছু শেয়ার করিনা, চিন্তা করবে, আমাকে সুস্থ করার জন্য এক সময় ওর সব গহনা বিক্রি করে দিয়েছিলো। শুধু একটা কথা বলতো তুমি সুস্থ হও আবার বানিয়ে দিবা। আমার স্ত্রী অনেক সাদা-সিদে মানুষ বেশি কিছু বুঝে না। সে আমাকে অনেক ভালোবাসে আর এই জন্য এত কষ্ট সহ্য করে যাচ্ছে সে। গত ২ মাস ধরে সারাদিন কাজ কাম করে/ দোয়া কালিমা পড়ে , আমল করে/ রোজা থাকছে আবার রাতে তাহাজ্জুত নামাজ পড়ে শুধু আমার জন্য এত কষ্ট করছে, আমি ওর কষ্ট গুলান আর দেখতে পারছি না।

সব থেকে ভালো সহধর্মীনি আল্লাহ আমাকে দিয়েছেন, আমি তার যোগ্য না। তার কথা মতো চললে আজ আমার এমন দিন আস্ত না। তাই নিজেই নিজেকে শাস্তি দিচ্ছি। =রুবি- টুম্পা – নাফিস – রুকু তোমার আমার জান গো। তোমরা আমাকে মাফ করে দিও গো। আমি অনেক চেষ্টা করলাম কোনো ভাবেই কিছু করতে পারছি না, অনলাইন জগতে কেও কাওকে হেল্প করতে চাইনা, অনেক চেষ্টা করলাম বেঁচে থাকার জন্য কিন্তু পারলাম না। কোনো ভাবেই কাজ হচ্ছে না। আমি বেঁচে থাকলে আরো ঋণ বেড়ে যাবে তার থেকে আমি চলে যাই। সাদীপ ভাই আমার, নাফিস /রুকু টুম্পাকে দেখে রেখো কখনো ধমক দিয়ে কথা বলিও না ওরা কষ্ট পাবে, মনে হবে আব্বু নাই তাই এমন করছে।

দীপ ভাই আমার! বুজতে দিও না ওদের আব্বু আর নাই। আমি বাড়িতে থাকতে তোমাকে সব কথায় বলতাম।, আমি অনেক বার গেছি তোমাকে সব বলবো ভেবে কিন্তু পারিনি বলতে । ভাই মাটি দিতে তারা হুর করিও না, আমার সকল আত্মীয়, পাড়া প্রতিবেশী সহ দেশের অনেক ভাই বোন আছে যারা আমাকে অনেক ভালোবাসে তাদের দেখার সুযোগ দিও। =বড় আব্বা, বড় মা আপনারা। আমার স্ত্রী ও ছেলে মেয়েদের দেখে রাখবেন। বড় আব্বা, বড় মা, আমার তো মা /বাবা নাই আমি ছোট থেকেই আপনাদের নিজের বাবা মা জানি। এই কয়দিন অনেক বার বাড়িতে গেছি এক বার মনে করেছিলাম আপনাদের সব বলি, যে আমি অনেক বিপদে আছি। কিন্তু যদি পাশে নাই পাই কাওকে।

=হারুন ভাই, ভাগ্যবান তো সেই ভাই/বোন যারা আপনার মতন একজন ভাই পেয়েছে। আপনাকে অনেক ধন্যবাদ আমার ছেলে মেয়ের ঈদ এর পোষাক কিনে দিয়েছেন। আমি কৃতজ্ঞ আপনার কাছে। নিজের প্রতি ঘৃণা হচ্ছে ভাই কেমন বাপ আমি ছেলে মেয়েকে পোশাক কিনে দিতে পারিনা ঠিক মতন খাবার দিতে পারিনা, কেমন স্বামী আমি বউ কে একটা জামা কিনে দিতে পারিনা , রুবি বার বার বলছে ভাইয়া কে বললে মনে হয় আমাকেও কিনে দিতো।

আমি বুজলাম ওর ভিতরে অনেক কষ্ট। হারুন ভাইয়া রুবি সারাটা জীবন কষ্ট করেছে তাকে একটু দেখে রেখেন ভাইয়া। মেয়েটার ভিতরে অনেক কষ্ট দুঃখ এত গুলান ভাই থাকতেও কেও খোঁজ নেই না আপনি ছাড়া। আমার শেষ অনুরোধ টা রাখবেন ছোট বোনটার পাশে থাকবেন। আর ওর সব ভাইদের সাথে মিল করিয়ে দিবেন। ভাইয়া সম্ভব হলে রুকু মনি কে নিজের মেয়ের মতো করে লালন পালন করবেন। আপনি আমার নিজের ভাই হলে হয়তো আমি এই বিপদ থেকে বেঁচে যেতাম যদি আবার আল্লাহ দুনিয়াতে পাঠায় আপনার ভাই হইয়া আসবো।

=দাদি-আম্মা-ছন্দা-মাসুমা -সুরভী-খেলনা আপা -শিহাব-রাব্বি-আসমা আপা -বড় ফুপু -মেজে ফুপু -ছোট ফুপু -সহ আমার সকল আত্মীয় স্বজন, পাড়া প্রতিবেশী আপনাদের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি আপনারা আমাকে ক্ষমা করে দিবেন। যদি সম্ভব হয় আমার পরিবার এর পাশে থাকবেন। =আসাদ ভাই আপনি অনেক বড় মনের একজন ভালো মানুষ যদি পারেন আমাকে ক্ষমা করে দিয়েন। আপনার বাসায় যে দিন ভাড়া এসেছিলাম আপনাকে একজন অভিভাবক এর মতন পাশে পেয়েছি। যারা আত্মহত্যা করে তারা নিজেকে একবার খুন করে ফেলার আগে বহুবার নিজেকে বাঁচিয়ে রাখার চেষ্টা করে কেউ সেটা বুঝতে পারে না।

প্রিয় দেশবাসী গত ৩ মাস থেকে আমার ঘরে খাবার এর কষ্ট আমার বউ অনেক কষ্টে খাবার যোগাড় করতেছে। আমার মৃত্যুর পর আমার বউ ছেলে মেয়ের পাশে থাকবেন ওদের থাকার মতন জায়গাটাও আমি রেখে যেতে পারলাম না। কথা গুলান লিখতে লিখতে অনেক কাঁদলাম সবাইকে অনেক মনে পড়ছে। আর থাকতে পারলাম না চলে যাচ্ছি। ক্ষমা করে দিয়েন ক্ষমা করে দিও আল্লাহ। প্রিয় দেশবাসী আমার স্ত্রী, ছেলে /মেয়ের জন্য কিছু করে যেতে পারলাম না। তবে আমি বেঁচে থাকলে আরো ঋণ বেড়ে যাবে তাই চলে যাওয়া ছাড়া আমার আর কোনো উপায় নাই। যদি সম্ভব হয় আমার স্ত্রী, ছেলে, মেয়ের থাকার একটা ব্যবস্থা করে দিবেন আপনারা। আর এই হতভাগা ভাইটাকে ক্ষমা করে দিবেন । আমার স্ত্রীর মোবাইল নম্বর – 01306…… আমার বাড়ির ঠিকানা – ১৬৬/১ হোসেনীগঞ্জ, থানা বোয়ালিয়া, জেলা রাজশাহী।

পোস্টটি ভালো লাগলে আপনার মতামত জানান এবং শেয়ার করুন। ধন্যবাদ!


Deprecated: Theme without comments.php is deprecated since version 3.0.0 with no alternative available. Please include a comments.php template in your theme. in /home/ourmedia24/public_html/wp-includes/functions.php on line 5411

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো খবর
© All rights reserved 2020 ourmedia24. কারিগরি সহায়তায়ঃ
Theme Customized By BreakingNews