1. omsakhawat@gmail.com : admin :
  2. emaad55669@gmail.com : Sakhawat Ullah : Sakhawat Ullah
সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:১৫ পূর্বাহ্ন
বিঃ দ্রষ্টব্য
★★ স্বাগতম আপনাকে আমাদের সাইটে ভিজিট করার জন্য!চাইলে আপনিও আমাদের সাথে যুক্ত হতে পারেন!  বিস্তারিত জানতে যোগাযোগ করুন! ★★
শিরোনাম
গভীর রাতে থেমে গেল ট্রেন, রেললাইনে শুয়ে রক্তাক্ত কুমির! সোমালিয়ায় আত্মঘাতী হামলা, নিহত ১১ সৌদি বাদশার বিশেষ সহকারীকে অব্যাহতি দিয়ে নতুন নির্দেশনা ইশা ছাত্র আন্দোলন ঢাকা মহানগর পূর্বের বইপাঠ ও পর্যালোচনা উৎসব অনুষ্ঠিত গাজায় বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল ‘সংক্রমণ বাড়লে আবারো স্কুল-কলেজ বন্ধের পরামর্শ দেওয়া হবে’ রাজধানীতে পথকলিদের নিয়ে ইশা ঢাকা মহানগর পূর্বের শিক্ষা আসর ও খাবার বিতরণ কর্মসূচী পালিত বাবু নগরীর পর এবার চলে গেলেন বাংলাদেশের মুফতিয়ে আজম আব্দুস সালাম চাটগামী অ্যাসাইনমেন্ট দিতে এসে কলেজের টয়লেটে সন্তান প্রসব, রেখেই পালালো ছাত্রী জামায়াতের সেক্রেটারিসহ ৯ নেতাকর্মী আটক

অর্থনৈতিকভাবে স্ববালম্বী হতে চাকরি বা বিজনেস যেটা আপনার ইচ্ছা বেছে নিন আজই!

অসহায়ের পাশে দাঁড়ানো মানবতার অধিকার

  • প্রকাশকাল : রবিবার, ১২ এপ্রিল, ২০২০
  • ২৩৭ পঠিত

সাঈদ বিন ইদ্রিস

পৃথিবীতে মানুষের পথচলা, আমাদের এই পদচারণা–মানুষকেঘিরেই। একে-অন্যের সাহায্য -সহযোগিতা আর ভালবাসা নিয়েই মানুষেরবসবাস। সকাল গড়িয়ে সন্ধা নামা, রাতের আঁধার কেটে ভোরের সূর্যি উদ্ভাসিত হওয়া—এসবের অন্তরালে রয়েছে মানুষ’।

মানুষের ভালোবাসা নিয়েই পৃথিবীতে চলতে হয়। পাড়ি দিতে হয় দূর্গম মরুপ্রান্তর। কাটাতে হয় দুর্দান্ত সব মুহূর্ত! মানুষ বাঁচতে শিখেছে, কষ্টভরা, কন্টকাকীর্ণ পথ মাড়াতে শিখেছে -মানুষকে ঘিরেই। পৃথিবীতে মানুষ কখনো একা চলতে পারে না।

 মরুভূমির সফরে মানুষের যেমন একা চলা-দুষ্কর! রয়েছে বাকে বাকে বিপদের সমূহ শংকা! মরুদস্যু, ডাকাত বা পথ হারাবার আশংকা। তেমনি জীবনের এ-মরুপ্রান্তরে একা ভ্রমণ কখনো সম্ভব নয়! মানুষকে বাঁচতে হয় মানুষকে নিয়েই । মানুষ মানুষের জন্যই!

পৃথিবীর জন্মলগ্ন থেকে এ-ক্লান্তিলগ্ন পর্যন্ত -মানুষ মানুষের জন্যই কাজ করেছে। বাঁচতে হলে মানুষের সাহায্যের প্রয়োজন হয়। হোক সে বাবা-মা, ভাই-বোন, আত্মীয়-স্বজন, প্রতিবেশি, বন্ধুবান্ধব বা অচেনা কোন মানুষ! মানুষের সাথে মানুষের সম্পর্ক ওতপ্রোতভাবে মিশে আছে সবার রন্দ্রে রন্দ্রে, শীরায় উপশীরায়। তাই সকলের উচিত, কোন অসহায়, দারিদ্রপীড়িত, অভাবী, অসুস্থ, বন্যা কবলিত, ঘূর্ণিঝড়ে আক্রান্ত ব্যক্তি -দেখলে তাদের প্রতি সাহায্যের হাত প্রসারিত করা। সর্বাত্তক সাহায্যের হাত বাড়িয়ে মানুষকে বিপদ থেকে রক্ষা করা।কারণ, মানুষ মানুষের জন্য ।

এ-জন্য কোন জাতি, গোষ্ঠী আর বর্ণের ভেদাভেদ না করা। হিন্দু-মুসলিম, ইয়াহুদী-খৃষ্টান–দল মত নির্বিশেষে মানুষের সাহায্যে এগিয়ে আসা। ইতিহাসে একটি কালো অধ্যায় ছিলো ।

যখন মানুষ ভালো-মন্দের পার্থক্য বুঝতো না।গুম, খুন, চুরি-ডাকাতি, লুটতরাজ  ছিলো ব্যাপক।নেশা, মদ-জুয়া, ধর্ষণ ছিলো যাদের নৃত্যকর্ম।যাদের ছিলোনা -মনুষত্ব।

যে যুগে রাস্তা বা কাফেলা থেকে মানুষ ধরে’গোলাম’বলে বিক্রি করা হতো নির্দ্বিধায়! অবাধ অপরাধের বিস্তার ছিলো সর্বদা। মানুষ ছিলো, কিন্তু মানুষ মানুষের জন্য ছিলো না! আমরা চাই না আবার ফিরে আসুক এমন দিন। মানুষ মানুষের জন্য হয়েই বেঁচে থাকতে চাই-পৃথিবীতে। ভালোবাসা আর সৌহার্দপূর্ণ আচরণের পরিবর্তে কখনো মানুষের ওপর নেমে আসে-বিপর্যয়। এ-বিপর্যয় কখনো ব্যক্তি, সমাজ, জাতি বা দেশের ওপর। কখনো কোন ব্যক্তি -কোন ব্যক্তির ওপর বিপর্যয় ডেকে আনে। বিভিন্নভাবে তাকে ঘায়েল করার চেষ্টা করে। আবার কখনো কোন জাতি। কখনো বা কোন দেশ।

এ-বিপর্যয় সৃষ্টির পেছনে কাজ করে–মনুষ্যত্বহীনতা! আল্লাহ রব্বুল আলামীন মানুষ সৃষ্টি করেছেন এবং তাদের মাঝে দূর্বল-সবল করেছেন। কিন্তু তার মর্ম এ-নয় যে, সবল দূর্বলের ওপর বিপর্যয়ের সৃষ্টি করবে! মনুষ্যত্ব্যের ব্যত্যয় ঘটাবে! আজ বিশ্বের দিকে দিকে মানুষের হাহাকারে আকাশ-বাতাস ভারী হয়ে গেছে। ছোট্ট ছোট্ট শিশু থেকে শুরু করে আবাল-বৃদ্ধার ক্রন্দনধ্বনিতে চাপ চাপ অস্থিরতা অনুভূত হচ্ছে! কিন্তু কেন? মানুষ আর মনুষ্যত্ব্যের বিপর্যয়ের বার্তা নয় কি এসব! এইতো কিছুদিন পূর্বে ‘নিউজিল্যান্ড-এর একটি মসজিদে নামাজরত মুসল্লিদের ওপর নির্বিচারে  গুলি চালায়”ব্রেনটন ট্যারেন্ট “নামক অস্ট্রেলিয়ান এক শ্বেতাঙ্গ শ্রেষ্ঠত্ববাদীসন্ত্রাস। নিষ্ঠুরতার এক ভয়াল দৃশ্য! হামলায় নিহত হয় -অর্ধশতাধিক।সম্প্রতি সংবাদ মাধ্যমে জানা যায়, এ হামলা প্রকৃতপক্ষে”অ্যান্ডারস ব্রেভিক”-এর হামলায় উদ্বুদ্ধ হওয়ার ফল।যে ইতিপূর্বে এমন নিষ্ঠুরতার বিকাশ ঘটিয়েছে। হামলাকারী নিজেই তার বিবৃতিতে প্রকাশ করেছে। ইতিহাসে এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনা নতুন নয়। সাম্প্রদায়িক এসব হামলায় আজ জাতি বাকরুদ্ধ, কোনঠাসা হয়ে পড়েছে।

অথচ বিশ্ববিবেক আজ মুখে তালা দিয়ে বসে আছে। দেখেও না দেখার ভান করছে। কোথায় মানুষ, আর কোথায় মনুষ্যত্ব! অথচ মানুষের উপকার করা’ই মানুষের ধর্ম হওয়া উচিত ছিলো। মানুষের সাহায্যে এগিয়ে আসা বাঞ্ছনীয় ছিলো!  রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সর্বদা -গরিব, অসহায়, দুস্থদের খোঁজ -খবর নিতেন। সাধ্যমত তাদের সেবা করতেন। অসহায়-দুস্থদের পাশে দাঁড়াতেন। তিনিই মানুষকে শিখিয়েছেন–মানুষ মানুষের জন্য! মানুষের সুখ-দুঃখ -এ তাদের তাদের পাশে থাকা প্রতিটি মানুষের নৈতিক দায়িত্ব। এ-গুরুদায়িত্বে অবহেলা করার কোন সুযোগ –ইসলামে নেই। এ-জন্য অবশ্যই আল্লাহর দরবারে জবাবদিহিতা করতে হবে।

একটি পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী ব্যক্তি’টি যখন কোন দূর্ঘটনার শিকার হন, তখন সেই পরিবারের মত অসহায়”দ্বিতীয়টি পাওয়া দুষ্কর। আমার এক বন্ধু, মধ্যবিত্ত পরিবারের আয়োজন খুব ভালোই চলছিল। কিন্তু হঠাৎ নেমে এলো তাদের ওপর অমাবশ্যার আঁধার । নিকষ কালো অন্ধকারে ছেঁয়ে যায় চারপাশ। ধূসর হয়ে ওঠে পৃথিবী । পায়ের তলার মাটি যেন সরে যায়–পরিবারের প্রধান ব্যক্তির অনুপস্থিতি নাড়িয়ে দেয় সকলকে। কোন এক বিয়ের অনুষ্ঠানে যাওয়ার পথে সড়ক দূর্ঘটনায় ঘটনাস্থলেই মারা যান-বাবা!অসহায় হয়ে পড়ে সবাই! উধাও হয়ে যায় সব আনন্দ-উল্লাস! চোখের জলে ভেসে যায় -আনন্দের ঢেউ!

এমন বহু পরিবার অভিবাবক হারিয়ে আজ নিঃস্ব প্রায়! “নুন আনতে যার পানতা ফুরোয়”তার জন্য এটা কতটা কষ্টের হতে পারে–ভাবা দুষ্কর! এসব ভাবতে গেলে চোখ ছলছল করে ওঠে-কান্নায়! নিজেকে ভারী ‘অপরাধী’মনে হয়! আমি তো কত সুন্দর পোশাক পরছি। উন্নতমানের খাবার খাচ্ছি। বিশাল অট্টালিকায় বসবাস করছি। কাড়ি কাড়ি টাকা খরচ করছি। অথচ আমার ভাই না খেয়ে দিনাপাত করছে। রাস্তা, ফুটপাত বা গাছতলায় রাত কাটাচ্ছে। আমার কী দায়িত্ব ছিলো না তাদের একটু খোঁজ নেবার! প্রভুর দরবারে এর কোন উত্তর আছে কী, আমাদের!? যদি জিঙ্গাসা করেন–আমি ক্ষুধার্থ ছিলাম, আমাকে খাবার দাওনি–আমরা কী জবাব দিবো!

তাই আসুন, আমরা মানুষের জন্য কাজ করি। মানব সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করি। একা না পারি, দশজন মিলে সমাজের অসহায়দের পাশে দাঁড়াই। একটুখানি সহানুভূতি প্রদর্শন করি মানুষের চেয়ে বড় কিছু নাই,নহে কিছু মহিয়ান। নাই দেশ-কাল-পাত্রের ভেদ,অভেদ ধর্মজাতি, সবদেশে, সবকালে, ঘরে-ঘরে,তিনি মানুষের জ্ঞাতি।

পোস্টটি ভালো লাগলে আপনার মতামত জানান এবং শেয়ার করুন। ধন্যবাদ!


Deprecated: Theme without comments.php is deprecated since version 3.0.0 with no alternative available. Please include a comments.php template in your theme. in /home/ourmedia24/public_html/wp-includes/functions.php on line 5411

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো খবর
© All rights reserved 2020 ourmedia24. কারিগরি সহায়তায়ঃ
Theme Customized By BreakingNews